কাজী ফার্মস গ্রুপে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ এরিয়া ম্যানেজার পদে

নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে অ্যাগ্রো ইন্ডাস্ট্রিয়াল গ্রুপ কাজী ফার্মস গ্রুপ। প্রতিষ্ঠানটিতে  ‘ম্যানেজার/সিনিয়র ম্যানেজার’ পদে নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহী যোগ্য নারী ও পুরুষ প্রার্থীরা আবেদন করতে পারেন।

পদের নাম

ম্যানেজার/ সিনিয়র ম্যানেজার, মেইনটেন্যান্স (ফিড মিল)

যোগ্যতা

যেকোনো সরকার স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় বা প্রতিষ্ঠান থেকে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বা ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ে স্নাতক পাস প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন। পূর্ববর্তী কোনো ফিড মিল অথবা সিমেন্ট ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করার ন্যূনতম পাঁচ থেকে ছয় বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। সঙ্গে প্রার্থীর মাইক্রোসফট অফিসে কাজের দক্ষতা থাকা প্রয়োজন ও ইআরপি সফটওয়্যার চলনায় দক্ষতা থাকতে হবে।। যেকোনো বয়সের প্রার্থীরাই এই পদের জন্য আবেদন করতে পারেন। প্রার্থীদের গজারিয়া, মুন্সীগঞ্জে কাজ করার আগ্রহ থাকতে হবে।

বেতন-ভাতা

বেতন আলোচনা সাপেক্ষে। এ ছাড়া অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা প্রদান করা হবে।

আবেদন প্রক্রিয়া

প্রার্থীরা সম্প্রতি তোলা এক কপি রঙিন ছবিসহ জীবনবৃত্তান্ত ই-মেইল করতে পারেন (jobs@kazifarms.com) এই ঠিকানায়। অথবা বিডিজবস অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন করতে পারেন।

আবেদনের সময়

আগ্রহী যোগ্য প্রার্থীরা আগামী ৯ মে, ২০১৯ পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন।

সূত্র : বিডিজবস

বিস্তারিত দেখুন :

KaziFarms-jobs

দি ইবনে সিনা ফার্মাসিউটিক্যাল ইন্ডাস্ট্রি লিমিটেড (সংক্ষেপে আইপিআই) হল বাংলাদেশের একটি ঔষুধ উৎপাদনকারী শিল্প প্রতিষ্ঠান। এটি ১৯৮৩ সালে ইবনে সিনা ট্রাস্ট কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত হয়। ইবনেসিনার প্রধান কার্যালয় গাজীপুরের সফিপুরে অবস্থিত। কোম্পানির বর্তমান চেয়ারম্যান হলেন শাহ আব্দুল হান্নান এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালক একিএম সদরুল ইসলাম। এটি ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ তালিকাভূক্ত কোম্পানি।

বাংলাদেশে উন্নত স্বাস্থ্য সেবার প্রদানের উদ্দেশ্যে ৩০ জুন ১৯৮০ তৎকালীন বাংলাদেশে নিযুক্ত সৌদি রাষ্ট্রদূত ফুয়াদ আব্দুল হামিদ আল খতিবের অর্থায়নে ইবনেসিনা ট্রাস্ট গঠিত হয়। এই ট্রাস্টের অংশ হিসাবে উন্নতমানের ঔষুধ উৎপাদনের লক্ষ্যে ১৯৮৩ সালে দি ইবনে সিনা ফার্মাসিউটিক্যাল ইন্ডাস্ট্রি লিমিটেড প্রতিষ্ঠিত হয়। দি ইবনে সিনা ফার্মাসিউটিক্যাল ইন্ডাস্ট্রি লিমিটেড ২০১৫ সালে আইসিএসবি পুরস্কার পায়।[৪] বর্তমানে এ কোম্পানি ৮টি দেশে (মায়ানমার, শ্রীলংকা, কম্বোডিয়া, ভিয়েতনাম, কেনিয়া, সোমালিয়া ও আফগানিস্তান) ঔষুধ রপ্তানি করে এবং আরও ১০টি রপ্তানি প্রক্রিয়া চলছে।